মোটরসাইকেলে ঘুরতে নিয়ে যেয়ে কি'শোরীকে ফুসলিয়ে দুলাভাইয়ের সংঘবদ্ধ ধ'র্ষণ

নারায়ণগঞ্জ থেকে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সহকর্মী বান্ধবীর বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে সংঘবদ্ধ ধ'র্ষণের শিকার হয়েছে এক গার্মেন্টস কর্মী। শুক্রবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনার সঙ্গে জ'ড়িত থাকার অ'ভিযোগে মুল আ'সামি সোহেল মিয়াসহ (৪০) ওই কি'শোরীর বান্ধবী আদুরী বেগমকে (২৮) গত শনিবার রাতে গ্রে'ফতার করেছে পু'লিশ।

সোহেল পলা'শবাড়ী উপজে'লার বাসুদেবপুর ভগবানপুর গ্রামের কমির মিয়ার ছে'লে এবং আদুরী শাখাহার ইউনিয়নের চক মানিকপুর গ্রামের লুৎফর রহমানের মে'য়ে এবং জাহিদুল ইস'লামের স্ত্রী'।

পু'লিশ জানায়, গোবিন্দগঞ্জ উপজে'লার শাখাহার ইউনিয়নের দিঘিরহাট চক মানিকপুর গ্রামের লুৎফর রহমানের মে'য়ে আদুরী বেগম তার স্বামীসহ ঢাকার নারায়ণগঞ্জে ভাড়া বাসায় থেকে গার্মেন্টসে কাজ করে। একই বাসায় ভাড়া থেকে গার্মেন্টসে কাজ করে ধ'র্ষণের শিকার ওই কি'শোরী। এই সুবাদে আদুরীর সঙ্গে ওই কি'শোরীর বন্ধুত্বের স'ম্পর্ক হয়। শুক্রবার আদুরী বেগম গাইবান্ধায় তার বাবার বাড়িতে বেড়ানোর কথা বলে ওই কি'শোরীকে নিয়ে আসে।

আদুরীর দুলাভাই সোহেল ওই কি'শোরীকে ফুসলিয়ে শুক্রবার মোটরসাইকেলযোগে ঘুরতে নিয়ে যায়। দিনভর বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে রাতে অ'জ্ঞাত স্থানে নিয়ে সোহেল ও তার চারজন বন্ধু মিলে ওই কি'শোরীকে ধ'র্ষণ করে। পরে ওই রাতে উপজে'লার বালুয়াবাজার বাংলালিংক টাওয়ারের সামনে ধ'র্ষিতাকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায় তারা।

ওই রাস্তায় চলাচলকারী লোকজন শুক্রবার রাত ১টায় ওই কি'শোরীর মুখে ঘটনা শুনে পু'লিশে খবর দিলে পু'লিশ তাকে উ'দ্ধার করে থা'নায় নিয়ে আসে এবং ধ'র্ষিতার বিবরণ মোতাবেক পাঁচজনকে আ'সামি করে থা'নায় মা'মলা রেকর্ড করা হয়।

গোবিন্দগঞ্জ থা'নার ওসি একেএম মেহেদী হাসান জানান, থা'নায় মা'মলা হওয়ার পর শনিবার অ'ভিযান চালিয়ে সোহেল মিয়া ও আদুরী বেগমকে গ্রে'ফতার করা হয়। এ ব্যাপারে গাইবান্ধা জে'লা সদর হাসপাতা'লে ধ'র্ষিতার শারীরিক পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়। অন্য আ'সামিদের গ্রে'ফতারের চেষ্টা চলছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!