মা-বাবাকে বেঁধে রেখে গৃহবধূকে ধ'র্ষণ, গ্রে'ফতার মিরাজ রি'মান্ডে

লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে মা-বাবাকে বেঁধে রেখে কি’শোরী গৃহবধূকে ধ’’ র্ষ’ ণের পর মা’রধরের ঘটনায় প্রধান আ’সামি মিরাজ হোসেনের চার দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেছেন আ’দালত। মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) দুপুরে মিরাজকে আ’দালতে হাজির করে সাত দিনের রি’মান্ড আবেদন করেন। বিচারক চার দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেন।

মা’মলার ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা ও রামগতি থা’নার পু’লিশ পরিদর্শক (ত’দন্ত) মো. মমিনুল হক বলেন, নারকী'’য় এ ঘটনার সুষ্ঠু ত’দন্ত চলছে। অন্য আ’সামিদের গ্রে’ফতারে অ’ভিযান অব্যাহত রয়েছে। মিরাজ চর নেয়ামত গ্রামের নুর মোহাম্ম’দের ছে’লে।

পু’লিশ ও ভুক্তভোগী গৃহবধূর পরিবার জানিয়েছে, রোববার (১৩ ডিসেম্বর) রাতে খাবার শেষে ওই গৃহবধূ (১৪) ও তার মা-বাবা সঙ্গে ঘুমিয়ে পড়ে। গভীর রাতে একদল মুখোশধারী লোক দরজা ভেঙে ঘরে ঢোকেন। ঘরে ঢুকেই তারা পরিবারের সদস্যদের হাত-পা বেঁধে ফেলেন। এক পর্যায়ে ওই গৃহবধূকে তারা জো’রপূর্বক ধ’’ র্ষ’ ণ করেন। এদের মধ্যে একজনের পান খাওয়ার সময় মুখোশ খুলে যায়। তিনি মিরাজ বলে গৃহবধূ চিনে ফেলেন। ধ’’ র্ষ’ ণ শেষে তারা গৃহবধূকে বেদম মা’রধর করে ঘরে থাকা টাকা ও স্বর্ণালঙ্কারসহ জিনিসপত্র নিয়ে পালিয়ে যান। পরে চি’ৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এসে গৃহবধূসহ পরিবারের লোকজনকে উ’দ্ধার করে রামগতি উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।

অবস্থার অবনতি হলে গৃহবধূকে উন্নত চিকিৎসার জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতা’লে নিয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়।

ধ’’ র্ষ’ ণ ও মা’রধরের ঘটনার সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) রাতে গৃহবধূর বাবা বাদী হয়ে মিরাজের নাম উল্লেখ ও অচেনা আরও তিন জনের নামে মা’মলা করেন।

এ ব্যাপারে রামগতি থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) মো. সোলায়মান বলেন, খবর পেয়েই আম’রা ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করে ভুক্তভোগীদের উ’দ্ধার করি। এ সময় ঘটনার আলামত জ’ব্দ করা হয়। পান খেতে গিয়ে মিরাজের মুখোশ খুলে যাওয়ায় তাকে শনাক্ত করা গেছে। পারিবারিক দ্বন্দ্বের জেরে এ ঘটনা ঘটে বলে ধারণা করা হচ্ছে। মা’মলা’টি গুরুত্ব দিয়ে ত’দন্ত করা হচ্ছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!