হাতের কব্জি কে'টে ছিনতাই করা সেই টাকা উ'দ্ধার, গ্রে'ফতার ৪

নরসিংদীর চাঞ্চল্যকর এনজিওকর্মীর হাতের কব্জি কে'টে ছিনতাই হওয়া টাকা উ'দ্ধার করেছে রেপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন। এ মা'মলার প্রধান আ'সামি রুবেল ও বাদশা এবং তাদের দুই সহযোগীকেও একই গ্রে'ফতার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেম্বর) দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের রেব ১১ এর সদর দপ্তরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান রেব ১১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল খন্দকার সাইফুল আলম। এর আগে সকালে বিশেষ অ'ভিযান পরিচালনা করে নরসিংদীর মাধবদী বাসস্ট্যান্ড থেকে তাদের গ্রে'ফতার করা হয়।

গ্রে'ফতাররা হলেন- রুবেল মিয়া (২১), আব্দুল কালা মিয়া (২২), মাহাবুবা হাজার মেরিনা (২২) ও মিঠি বেগম (২৩)।

ছিনতাই হওয়া ২ লাখ ৬৩ হাজার টাকার মধ্যে ১ লাখ ৯১ হাজার ৫শ টাকা উ'দ্ধার করা হয়েছে। সঙ্গে উ'দ্ধার হয়েছে একটি গেঞ্জি, একটি কাপ ও ভিকটিমের মোবাইল ফোন।

তাদের জিজ্ঞাসাবাদ ও প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায়, গত ১৫ ডিসেম্বর এনজিওকর্মী শান্তা আক্তার (৩১) নরসিংদী শহরের পশ্চিমকান্দা পাড়া এলাকা থেকে ঋণের কিস্তির টাকা আদায় করে শহরের বাজিড় মোড়ের অফিসে ফিরছিলেন। এসময় গ্রে'ফতার আ'সামি রুবেল মিয়া ও আব্দুল বাদশা মিয়া পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী নরসিংদী জে'লার সদর থা'নাধীন পশ্চিম কান্দাপাড়া সরকারি মহিলা কলেজের সামনে ওৎ ছিলেন।

ঘটনাস্থলে পৌঁছালে ভিকটিম এনজিওকর্মীর রিকশার গতিরোধ করে তার টাকাভর্তি ভ্যানিটি ব্যাগ রুবেল ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। তখন এনজিওকর্মী তার টাকার ব্যাগটি ধরে রাখতে চাইলে তার সহযোগী বাদশা তার হাতে থাকা চাপাতি দিয়ে এনজিওকর্মীর বাম হাতের কব্জিতে সজো'রে কোপ দিলে তার কব্জি কে'টে যায়।

র'ক্তাক্ত অবস্থায় ওই নারীকে ফেলে রেখে টাকা ভর্তি ব্যাগ ছিনতাই করে কৌশলে পালিয়ে নরসিংদী সদর থা'নাধীন ব্রাক্ষণপাড়ায় রুবেলের শ্বশুর বাড়িতে আত্মগো'পন করেন। বাসায় এনজিওকর্মীর ভ্যানিটি ব্যাগটি আ'গুনে পুড়িয়ে ফেলেন। পাশের সিসি ক্যামেরার ফুটেজে ছিনতাইয়ের দৃশ্য রেকর্ড হয়। পরে বিভিন্ন মিডিয়ায় সেটা প্রচার হলে দেশব্যাপী চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় আশা’র ব্রাঞ্চ ম্যানেজার ইসমাইল শিকদার বাদী হয়ে নরসিংদী জে'লার নরসিংদী সদর থা'নায় একটি দস্যুতা মা'মলা দায়ের করেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আ'সামি রুবেল মিয়া ও আব্দুল বাদশা মিয়া এনজিওকর্মীর হাতের কব্জি কা'টা ও ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনতাইয়ের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন।

রেব জানায়, গ্রে'ফতার সবাই পেশাদার ছিনতাইকারী এবং বিভিন্ন অসামাজিক ও অ'প'রাধমূলক কর্মকা'ণ্ডে জড়িত। এদের মধ্যে রুবেলের নামে চারটি, বাদশার নামে আটটি এবং মিঠি বেগমের নামে দু’টি মা'মলা চলমান।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!