রাত ১১টায় বাসায় ঢোকেন মামুন, ফের আড়াইটায় বের হন: দারোয়ান

নাটোরে কলেজছাত্রকে (২২) বিয়ে করা আ'লোচিত কলেজ শিক্ষিকা খাইরুন নাহারের ম'রদেহ উ'দ্ধার করেছে পু'লিশ। বিয়ের আট মাসের মা'থায় রোববার (১৪ আগস্ট) সকাল ৭টার দিকে শহরের বলারিপাড়া এলাকার একটি ভাড়া বাসা থেকে তার ম'রদেহ উ'দ্ধার করা হয়। নাটোর সদর থা'নার ভা'রপ্রাপ্ত কর্মক'র্তা নাসিম আহমেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

স্বামী মামুনের দাবি, শনিবার সকালে ফজরের নামাজ পড়ে মামুন বাড়িতে ঢুকে দরজায় নক করেন। কিন্ত তাতে কোনো সাড়া না পাওয়ায় দরজা ভেঙ্গে ভেতরে এসে দেখেন গলায় ওড়না পেঁচিয়ে সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলে আছেন খাইরুন নাহার।

এদিকে ওই ভাড়া বাসার দারোয়ান নিজাম উদ্দিন বিডি২৪লাইভকে বলেন, ‘রাত ১১টায় বাসায় ঢোকেন মামুন। আবার আড়াইটার দিকে বের হন। এ সময় কেন বের হচ্ছে জানতে চাইলে মামুন বলেন, ওষুধ কিনতে যাচ্ছেন। পরে সকাল ৬টায় মামুন আবার ফিরে আসেন। এরপর তিনি আমাকে ডাকেন। আমি চার তলায় গিয়ে দেখি লা'শ সিলিং ফ্যান থেকে নামানো।’

ভবনের বাসিন্দা ও এলাকাবাসী জানায়, রোববার ভোরে স্বামী মামুন ভবনের অন্য বাসিন্দাদের জানায় তার স্ত্রী' খায়রুন নাহার শেষ রাতে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আত্মহ'ত্যা করেছে। লোকজন তার বাসায় গিয়ে খায়রুন নাহারের ম'রদেহ মেঝেতে শোয়া অবস্থায় দেখতে পেয়ে স'ন্দেহ হয়। তারা মামুনকে বাসার মধ্যে আ'ট'কে রেখে পু'লিশে খবর দেয়।

ঘটনার পর থেকে এলাকাবাসী ও প্রতিবেশীরা ভীড় জমিয়েছে শহরের বলারীপাড়াস্থ ওই দম্পতির ভাড়া বাসার সামনে। তাই বাড়ির ভেতরেই মামুনকে পু'লিশ পাহারায় রাখা হয়। এরপর তাকে আ'ট'ক করে থা'নায় নিয়ে যাওয়া। এ তথ্য জানিয়েছেন নাটোর সদর থা'নার অফিসার ইনচার্জ নাছিম আহমেদ।

নাছিম আহমেদ বলেন, প্রকৃতই কি ঘটেছে তা জানার জন্য মামুনকে হেফাজতে নেয়া দরকার। তবে বলারীপাড়ার ভাড়া বাড়ির সামনে মানুষজনের উপস্থিতিতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হচ্ছে। তাই বাড়িতেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এরপর তাকে আ'ট'ক করে থা'নায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!