মামুনের কারনে অশান্তিতে ছিলেন নাসরিন

নাটোরের গুরুদাসপুরে শিক্ষিকা খায়রুন নাহার নাসরিনের (৪০) ঝুলন্ত ম'রদেহ উ'দ্ধারের ঘটনায় স্বামী মামুনের দায় দেখছেন শিক্ষিকার ভাগ্নে নাহিদ হোসেন (৩০)। এই যুবকের দাবি, মামুনের কারণে অশান্তিতে ছিলেন তার খালামনি।

বিডি২৪লাইভকে নাহিদ বলেন, আমা'র খালামনির স্বামী মামুন একজন নে'শাখোর। বিয়ের পর থেকে এখন পর্যন্ত সে ৫ লাখ টাকা ও একটি পালসার মোটরসাইকেল নিয়েছে। সম্প্রতি ওই মোটরসাইকেল তার ভালো লাগছে না এমন কথা জানিয়ে আরো দামী মোটরসাইকেল চেয়েছে। এ নিয়ে তার খালামনি মানসিক চাপে ছিলেন। এছাড়াও সম্প্রতি গুরুদাসপুরে মা'দক নিয়ে কিছু বখাটের মধ্যে গোলমাল হয়। ওই ঘটনায় সে আ'সামি হয়েছে। এসব বিষয় নিয়ে মানসিক, পারিবারিক ও বিভিন্ন চাপে অশান্তিতে ছিলেন তিনি। সবকিছু মিলিয়েই এই ঘটনা ঘটতে পারে। তবে এটি আত্মহ'ত্যা নাকি হ'ত্যা সে বিষয়ে আম'রাও নিশ্চিত নই।

তিনি আরও বলেন, বিয়ের ঘটনা ভাই'রাল হওয়ার পর থেকে নিজ আত্মীয়, সহকর্মী, পরিচিতজনরা বিভিন্ন সমালোচনা করেছেন। কেউ এটাকে পজিটিভ আবার কেউ নেগেটিভ দিক থেকে নিয়েছেন। এসব বিষয় নিয়ে চাপে ছিলেন খাইরুন।

নাহিদ আরো জানান, খাইরুনের আগের স্বামী বা সন্তানের পক্ষ থেকে কোনও চাপের বিষয় তারা শোনেননি। তবে কি কারণে তিনি আত্মহ'ত্যা করতে পারেন তা তার বোধগম্য নয়। বিষয়টি ত'দন্তের মাধ্যমেই বেড়িয়ে আসবে বলে জানান এই যুবক।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসা নাটোর পিবিআইয়ের পু'লিশ সুপার শরীফ উদ্দীন জানান, জে'লা পু'লিশ ঘটনার র'হস্য উদঘাটনের চেষ্টা করছে। আর পিবিআই পু'লিশ ওই ঘটনার ছায়া ত'দন্ত করছেন। দ্রুততম সময়ের মধ্যে ঘটনার র'হস্য উদঘাটনের চেষ্টা করছে জে'লা পু'লিশ।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!