কুরআনে হাফেজ হয়েও মা'র্শাল আর্টে দেশসেরা নাসির

পবিত্র কোরআনের হাফেজ হয়েও মা'র্শাল আর্টে দেশসেরা হয়েছেন নাসির। হেফজ শেষ করে গোপালগঞ্জ থেকে ঢাকায় আসেন মাদরাসায় উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করতে। পড়াশোনার পাশাপাশি গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজে'লার হাফেজ মোহাম্ম'দ আলীমুজ্জামান নাসির আগ্রহী ছিলেন শরীরচর্চায়। মা'র্শাল আর্ট ভালো লাগত তাঁর। মাদরাসার ছাত্র হয়ে মা'র্শাল আর্ট পছন্দ করার কথা বলতে পারছিলেন না কাউকেই। সাহস করে একদিন বড় ভাইকে কথাটা জানালে ভাই তাকে সম'র্থন দেন।

বড় ভাইয়ের চেষ্টায় ২০১৭ সালের দিকে ঢাকায় মেজবাহ আর্ট একাডেমিতে ভর্তি হন নাসির। সেখানে এস এম মেজবাহ উদ্দীনের তত্ত্বাবধানে শুরু করেন কঠোর অনুশীলন। নাসিরের প্রতিভা দেখে মেজবাহ উদ্দীন তাঁকে একটি ম্যাচ খেলার সুযোগ করে দেন। সে ম্যাচটি হারেন নাসির। এরপর তাঁকে হারাতে পেরেছেন খুব কম খেলোয়াড়। নিজের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখে এখন তিনি মা'র্শাল আর্টে দেশসেরা।

গত ৫ থেকে ৮ আগস্ট চার দিনব্যাপী ঢাকার পুরানা পল্টনে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ জিমনেসিয়ামে বাংলাদেশ মা'র্শাল আর্ট ফেডারেশন শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল স্মৃ'তি জাতীয় মা'র্শাল আর্ট প্রতিযোগিতা আয়োজন করে। এতে গোপালগঞ্জ স্পোর্টি ক্লাব, ঢাকা ক্রীড়া সংস্থা, নরসিংদী ক্রীড়া সংস্থা, বরিশাল ক্রীড়া সংস্থা, নোয়াখালী ক্রীড়া সংস্থা, গাজীপুর ক্রীড়া সংস্থা ও রংপুর ক্রীড়া সংস্থার ৬০ জন প্রতিযোগী অংশ নেন। সবাইকে পেছনে ফেলে দেশসেরা হন নাসির।

গোপালগঞ্জ স্পোর্টিং ক্লাবের হয়ে চারটি সোনা, পাঁচটি রুপা ও একটি ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন তিনি।

এর আগে ২০২১ সালের কি'শোরগঞ্জের নেহাল পার্কে অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু জাতীয় কুংফু প্রতিযোগিতায় দেশের ১৮টি জে'লার ৬৫ জন প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে স্বর্ণপদক পান নাসির। এরপর গত মা'র্চে কক্সবাজার পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত জাতীয় তাইচি কুংফু প্রতিযোগিতায় ১৮টি জে'লার ২০০ প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে প্রথম হন তিনি।

নিজের সাফল্যের মূল কৃতিত্ব পরিবারকেই দিলেন নাসির। বললেন, এই কৃতিত্বের পেছনে আমা'র বাবার অবদান অনেক। বাবা সব সময় আমাকে উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা দিয়েছেন। আমা'র বড় ভাইও আমাকে নানা ধরনের সহযোগিতা করেছেন। মেজবাহ স্যার নিজের ছে'লের মতো আমাকে গড়ে তুলেছেন। তাঁদের সবার প্রতি কৃতজ্ঞ আমি।

নাসির আরও বলেন, প্রতিটি মানুষের জন্য মা'র্শাল আর্ট শেখা খুবই জরুরি। শরীরকে সুস্থ রাখা, মনোবল বাড়ানো, আত্ম'রক্ষা, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। এ জন্যই আমি মা'র্শাল আর্ট পছন্দ করতাম। কিন্তু জাতীয় প্রতিযোগিতায় এত বেশি পদক পাব, কখনো ভাবিনি।
নাসিরের সাফল্যে উচ্ছ্বসিত কাশিয়ানী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মাদ আলী খোকন বলেন, ছে'লেটা আমাদের খায়েরহাট গ্রাম আর পুরো গোপালগঞ্জ জে'লার মুখ উজ্জ্বল করেছে। এ জন্য আমি এবং আমা'র ইউনিয়নবাসী আনন্দিত ও গর্বিত। আমা'র বিশ্বা'স, আরও অনেক দূর এগিয়ে যাবে কুরআনে হাফেজ নাসির।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!