আধাঘণ্টা কা'ন্নার পর মায়ের কোলে মৃ'ত্যু হয় শি'শু জাকারিয়ার

রাজধানীর উত্তরায় বিআরটি’র নির্মাণকাজের বক্স গার্ডার ছিট'কে প্রাইভেট'কারের উপর পড়ে পাঁচজন নি'হত হয়েছেন। এ দুর্ঘ'টনার সময় গাড়িতে থাকা দুই বছরের শি'শু জাকারিয়া তার মায়ের কোলে ছিল। গার্ডরটি সরাসরি তার উপর না পড়ায় প্রায় আধা ঘণ্টা জীবিত ছিল শি'শুটি। তবে তার পা গার্ডারে চাপা পড়ায় কেউ তাকে বের করতে পারেননি। একপর্যায়ের মায়ের কোলে মৃ'ত্যু হয় ছোট্ট জাকারিয়ার। সোমবার (১৫ আগস্ট) সোয়া ৪টার দিকে উত্তরা ৩ নম্বর সেক্টরের প্যারাডাইস টাওয়ারের সামনে নির্মাণাধীন বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের ক্রেন থেকে গার্ডার ছিট'কে প্রাইভেট'কারের ওপর পড়ে এ ম'র্মা'ন্তিক দুর্ঘ'টনাটি ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শি'শু জাকারিয়া তার মায়ের কোলে ছিল। গার্ডারটির চাপ ওর পায়ে পড়লেও মা'থা এবং বুক অক্ষত ছিল। তখনো বাইরে তাকিয়ে কাঁদছিল শি'শুটি। তাকে বের করার চেষ্টা করা হলেও ক্রেনের চাপে সম্ভব হয়নি। গার্ডারটি গাড়ির দুই-তৃতীয়াংশ চাপা দেয়। বাম পাশে থাকা দুজন সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যান। বেঁচে ফেরা হৃদয় ও রিয়া নবদম্পতি। তবে হৃদয়ের বাবা রুবেল মিয়া, বোন ঝরণা বেগম, ফাহিমা আক্তার ও ঝরণার দুই শি'শুসন্তান ঘটনাস্থলে মা'রা যায়।

শাকিল নামের এক প্রতক্ষ্যদর্শী জানান, হঠাৎ বিকট শব্দ হয়। তাকিয়ে দেখি- ক্রেন থেকে গার্ডার গাড়ির ওপর পড়লো। দ্রুত সেখানে গিয়ে দেখতে পাই, কয়েকজন বেঁচে আছে। দুজনকে আম'রা বের করি। তিনি বলেন, জাকারিয়া নামের শি'শুটা ওর মায়ের কোলে ছিল। গার্ডার চাপ ওর পায়ে পড়লেও মা'থা এবং বুক অক্ষত ছির। অনেকক্ষণ ধরে বাইরে তাকিয়ে কাঁদছিল বাচ্চাটা। কিন্তু গার্ডার এমনভাবে ওর পায়ের ওপর পড়েছিল যে বের করা সম্ভব হচ্ছিল না। হয়তো পা কে'টে ফেললে শি'শুটিকে বাঁ'চানো যেতো।

শাকিল আরও জানান, ফায়ার সার্ভিস এসে উ'দ্ধারকাজ শুরু করার আগেই শি'শু জাকারিয়ার মৃ'ত্যু হয়। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা অনেকবার চেষ্টার পর গার্ডার গাড়ির ওপর থেকে সরাতে সক্ষম হয়। এরপর কাছে গিয়ে দেখা যায়, শি'শু জাকারিয়া তার মা ঝরণার কোলে ছিল। ওভাবেই মা-ছে'লের মৃ'ত্যু হয়।

নি'হতদের স্বজন জাহিদ হাসান শুভ বলেন, পু'লিশ কল করে আমাদেরকে দুর্ঘ'টনার কথা জানান। এয়ারপোর্ট থেকে আম'রা এসে দেখি, গাড়ি তখনো গার্ডারের নিচে চাপা পড়ে আছে। গার্ডার দ্রুত সরিয়ে আ'হতদের হাসপাতা'লে নিলে হয়তো আরও কেউ কেউ বেঁচে যেতেন। তিনি বলেন, পুরোটাই প্রজেক্টের লোকজনের গাফিলতি। সাড়ে ৩টায় ঘটনা ঘটছে, কোনো লোক আসেনি। চার ঘণ্টা ধরে এভাবে ছিল। আমি এসে দেখেছি, আমা'র ভাগ্নে জীবিত, বোনও জীবিত। ওরা শ্বা'স নিচ্ছিল। আমা'র বেয়াই যিনি ড্রাইভ করছিলেন, তারও হাত কাঁপছিল।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!