মাইকে ঘোষণা দিয়ে ঘুষের টাকা ফেরত

জয়পুরহাটের পাঁচবিবির রসুলপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ মিল্টনের চাচাতো ভাই রিগান হোসেন খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় হতদরিদ্রদের ভাতা কার্ড অনলাইনে নিবন্ধনের জন্য ৮৮০ জন ভাতাভোগীর নিকট থেকে ৫০ টাকা করে ঘুষ নিয়েছিলেন। পরে জানাজানি হওয়ায় সেই টাকা মাইকে ঘোষণা দিয়ে ফেরত দিতে বাধ্য করেছেন ওই ইউনিয়নের সাত ইউপি সদস্য।

গতকাল বুধবার (১৭ আগস্ট) ভাতাভোগীদের টাকা ফেরত দেওয়া হয়। চেয়ারম্যান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন বলেন, এ ঘটনায় ইউনিয়নের দুজন উদ্যোক্তাও জ'ড়িত ছিলেন। জানা যায়, ১০ টাকা কেজি দরে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ইউনিয়নের হতদরিদ্র ভাতাভোগীদের নামের তালিকা অনলাইনে নিবন্ধন করার জন্য সরকারি খরচে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে নিবন্ধন করার নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু তাদের ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে অনলাইনে নিবন্ধন করার কথা বলে ৫০ টাকা করে আদায় করেন চেয়ারম্যানের চাচাতো ভাই রিগান হোসেন।

বিষয়টি জানাজানি হলে ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান এক নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নাজমুল হোসেনে বাবুসহ সাতজন ইউপি সদস্য এর প্রতিবাদ করেন। পরে ইউপি সদস্যদের তোপের মুখে চেয়ারম্যানের ভাই ঘুষের টাকা ফেরত দিতে বাধ্য হন।

এ ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার মাইকে ঘোষণা দিয়ে টাকা ফেরত দেওয়ার কথা প্রচার করেন প্যানেল চেয়ারম্যান নাজমুল হোসেন বাবু। আজ বুধবার ৮৮০ জন হতদরিদ্র ভাতাভোগীকে ৫০ টাকা ও যাতায়াত ভাড়া হিসেবে অ'তিরিক্ত ২০ টাকাসহ ৭০ টাকা করে ফেরত দেওয়া হয়।

ইউপি চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ মিল্টন বলেন, ‘আমি চেয়ারম্যান হওয়ার পর রিগান একটু পরিষদে এসে কাজকাম করে। তবে সে পরিষদের কেউ না। এ ঘটনায় রিগান একাই না, পরিষদের দুজন উদ্যোক্তা শামিমা আক্তার ও শ্যামল সরকারও জ'ড়িত।’ উপজে'লা নির্বাহী অফিসার বরমান হোসেন বলেন, ‘টাকা নেওয়ার বিষয়টা শুনেছি। লিখিত অ'ভিযোগ পেলে আমি ব্যবস্থা নেব।’

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!