কেমন আছেন ফারুক, দেশে ফিরবেন কবে?

ঢাকাই সিনেমা'র জীবন্ত কিংবদন্তি আকবর হোসেন পাঠান। সবার কাছে যিনি ফারুক নামেই পরিচিত।
এই অ'ভিনেতা দীর্ঘদিন ধরেই সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতা'লে চিকিৎসাধীন।

২০২১ সালের মা'র্চ মাসে হাসপাতা'লে ভর্তির পর থেকেই স্ত্রী' ফারহানা পাঠান তার সঙ্গে রয়েছেন। সম্প্রতি তাকে দেখতে সিঙ্গাপুরে গেছেন মে'য়ে ফারিহা তাবাসসুম পাঠান, পুত্র রওশন হোসেন শরৎ ও ভাগনি লিমা। সামাজিক মাধ্যমে পরিবারের সঙ্গে একগুচ্ছ ছবিতে দেখা গেছে ফারুককে।

সুস্থ হয়ে ওঠেছেন এই নায়ক। তার স্ত্রী' ফারহানা জানান, বর্তমানে তার স্বামী ফারুক ভালো আছেন। এখন তাকে নিয়ে দেশে ফেরার পালা।

এদিকে বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) নায়ক ফারুকের জন্ম'দিন ছিল। সিঙ্গাপুর থেকে জন্ম'দিন উপলক্ষে একটি ভিডিও বার্তায় দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন ‘মিঞা ভাই’ খ্যাত অ'ভিনেতা।

১৯৭১ সালে এইচ আকবর পরিচালিত ‘জলছবি’ চলচ্চিত্রে অ'ভিনয় শুরু করেন ফারুক। এরপর ১৯৭৩ সালে খান আতাউর রহমান পরিচালিত ‘আবার তোরা মানুষ হ’, ১৯৭৪ সালে নারায়ণ ঘোষ মিতা পরিচালিত ‘আলোর মিছিল’ দুটি মুক্তিযু'দ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্রে অ'ভিনয় করেন তিনি।

১৯৭৫ সালে তার অ'ভিনীত ‘সুজন সখী’ ও ‘লা'ঠিয়াল’ সিনেমা দু’টি ব্যবসা সফল ও আ'লোচিত হয়। ‘লা'ঠিয়াল’ চলচ্চিত্রের জন্য সেরা পার্শ্ব চরিত্রে অ'ভিনেতা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন।

এরপর সময় যতো পেরিয়েছে পর্দায় নিজেকে গড়েছেন ভেঙেছেন। একে একে অ'ভিনয় করেছেন ‘সূর্যগ্রহণ’, ‘মাটির মায়া’, ‘নয়নমনি’, ‘সারেং বৌ’, ‘গো'লাপী এখন ট্রেনে’, ‘নাগরদোলা’, ‘দিন যায় কথা থাকে’, ‘কথা দিলাম’, ‘মাটির পুতুল’, ‘সাহেব’, ‘ছোট মা’, ‘এতিম’, ‘ঘরজামাই’, ‘মিয়া ভাই’র মতো অসংখ্য সিনেমায়। সবশেষ ২০০৮ সালে ‘ঘরের লক্ষ্মী’ সিনেমায় অ'ভিনয় করেন ফারুক।

অ'ভিনয়ের বাইরে নায়ক ফারুক একজন রাজনীতিবিদ। স্কুল জীবন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যু'ক্ত হয়েছিলেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযু'দ্ধেও অংশ নেন তিনি। সবশেষ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ঢাকা-১৭ আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!