বঙ্গবন্ধুই আমা'র নাম দিয়েছিলেন ‘বাংলার দীলিপ কুমা'র’

বাংলাদেশের সিনেমা'র জীবন্ত কিংবদন্তি নায়ক ও নৃত্য পরিচালক জাভেদ অ'ভিনীত সিনেমা সর্বশেষ মুক্তি পায় প্রায় চার বছর আগে। এরপর আর তাকে নতুন কোনো সিনেমাতে অ'ভিনয়ে দেখা যায়নি। কারণ এরপর তিনি শারীরিকভাবেই অনেকটা অ'সুস্থ হয়ে যান। সেই অ'সুস্থ অবস্থা থেকে এখনো তিনি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠতে পারেননি।

রাজধানীর উত্তরায় তার নিজ বাসভবনে গত ২২ আগস্ট এক ঘরোয়া আড্ডায় মেতে উঠেন তিনি পুরনো দিনের স্মৃ'তিচারণা নিয়ে। সেখানে যে বিষয়টি নতুন করে এই প্রজন্মের পাঠক, দর্শককে জানানো জরুরি তা হলো- চিত্রনায়ক জাভেদ যখন নিজেকে নাচে পারদর্শী করে তোলার জন্য তারই নৃত্যগুরু সাধু মহারাজের সঙ্গে ভা'রতে যান, সেই আসা-যাওয়ার সময়টাতে তিনি তার ভাগ্নেদের বলে গিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে দেখা করার কোনো সুযোগ থাকলে যেন তাকেও সঙ্গে নিয়ে যাওয়া হয়।

মূলত জাভেদের ভাগ্নেরা আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার কারণে তখন থেকেই বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তাদের নিয়মিত যোগাযোগ ছিল। সেই সময়টাতেই জাভেদের একবার সুযোগ আসে বঙ্গবন্ধুর কাছে যাওয়ার। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে দেখা হওয়ার পর জাভেদ বঙ্গবন্ধুর কাছ থেকে ভা'রতে নাচের প্রশিক্ষণের জন্য আশীর্বাদ নিতে গেলে বঙ্গবন্ধু তাকে ‘বাংলার দীলিপ কুমা'র’ নামে অ'ভিহিত করেছিলেন। সেই সময়ে এ বিষয়টি বাংলাদেশের চলচ্চিত্রাঙ্গনে বেশ ছড়িয়ে পড়ে।

তখন থেকেই মূলত জাভেদকে ‘বাংলার দীলিপ কুমা'র’ নামে অ'ভিহিত করা হয়। জাভেদের বয়স যখন মাত্র ১৪, সেই বয়সেই তিনি পূর্ব পা'কিস্তান থেকে পরিবারের সবাইকে ছেড়ে তারই ওস্তাদ সাধু মহারাজের সঙ্গে পশ্চিম পা'কিস্তানে চলে আসেন। এখানে এসে তারই ওস্তাদের সঙ্গে সিদ্দিক বাজারে থাকতেন। সেই সময় ‘নয়া জিন্দেগী’ নামে এক সিনেমাতে অ'ভিনয় করেন তিনি নাসিমা খান ও অঞ্জনার বিপরীতে। কিন্তু সিনেমাটি মুক্তি পায়নি। এরপর আরও বেশ কয়েকটি সিনেমাতে অ'ভিনয় করেন তিনি। তবে ১৯৭০ সালের ৩০ জানুয়ারি মুক্তিপ্রাপ্ত উর্দু সিনেমা মু'স্তাফিজ পরিচালিত ‘পায়েল’ সিনেমাতে দর্শক তাকে লুফে নেয়। এই সিনেমাতে আরও ছিলেন নায়করাজ রাজ্জাক, শাবানা। মূলত এই সিনেমাতে তাকে দেখতে দীলিপ কুমা'রের মতোই লাগত। ১৯৭০ থেকে ১৯৮৯ পর্যন্ত নায়কদের মধ্যে জাভেদ ছিলেন অসম্ভব জনপ্রিয়। নিজে নাচতেন ও নায়িকাদের নাচিয়ে পর্দা কাঁপিয়ে তুলতেন। শাবানা, ববিতা, অঞ্জু ঘোষ, রোজিনা, সুজাতা, সুচরিতা প্রমুখ ছিলেন তার নায়িকা। ‘নিশান’ সিনেমাতে জাভেদের অ'ভিনয় প্রমাণ করেছিল, তিনিও যে রঞ্জনের মতো এক দুঃসাহসিক নায়ক। নায়ক হিসেবেই নয়, নৃত্য পরিচালক হিসেবেও একসময় ছিল তার ব্যস্ততা।

জাভেদের জন্ম ১৯৪৪ সালে আ'ফগা'নিস্তানে। পরে তারা পেশোয়ার হয়ে পাঞ্জাবে আসেন। শৈশবে তার প্রিয় নায়ক ছিলেন দিলীপ কুমা'র। ১৯৭৪ সালের পর থেকে জাভেদ ঢাকাই চলচ্চিত্রে আবার ব্যস্ত হয়ে উঠেন। একে একে নায়ক হিসেবে অ'ভিনয় করেন- মালকা বানু, অনেক দিন আগে, শাহাজাদা, রাজকুমা'রী চন্দ্রবান, সুলতানা ডাকু, আজো ভুলিনি, কাজল রেখা, সাহেব বিবি গো'লাম, নিশান, বিজয়িনী সোনাভান, রূপের রানী, চো'রের রাজা, তাজ ও তলোয়ার, নরম গরম, তিন বাহাদুর, জালিম, চন্দন দ্বীপের রাজকন্যা, রাজিয়া সুলতানা, সতী কমলা, বাহারাম বাদশা, আলাদিন আলী বাবা, সিন্দাবাদ প্রভৃতি ছবিতে।

অ'ভিনয়ের পাশাপাশি এসব সিনেমাতে নৃত্য পরিচালক হিসেবেও তিনি কাজ করেছিলেন। ‘মনের ঐ ছোট্ট ঘরে আ'গুন লেগেছে হায়রে’, ‘নাচো নাচো গো অঞ্জনা’, ‘চাকভুম চাকভুম চাঁদনী রাতে’, ‘মালকা বানুর দেশেরে বিয়ের বাজনা বাজেরে’, ‘ওরে ও বাঁশিওয়ালা’ ইত্যাদি জনপ্রিয় গানেরও নৃত্যপরিচালক ছিলেন তিনি। জাভেদ এ পর্যন্ত প্রায় দুই শতাধিক ছবিতে অ'ভিনয় করেছেন- একসময় বছরের পর বছর মুক্তি পাওয়া প্রায় প্রতিটি ছবির নৃত্যপরিচালক ছিলেন তিনিই।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!