দশম শ্রেণির ছা'ত্রীর সঙ্গে শ্রেণিকক্ষে আ'পত্তিকর অবস্থায় ধ'রা শিক্ষক

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শি'বগঞ্জ উপজে'লার ছত্রাজিতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছা'ত্রীর সঙ্গে আ'পত্তিকর অবস্থায় আ'ট'ক হয়েছেন এক শিক্ষক। পরে স্থানীয়রা ওই শিক্ষক ও ছা'ত্রীকে পু'লিশের হাতে তুলে দেন। মঙ্গলবার রাতে ছা'ত্রীর চাচা বাদী হয়ে শি'বগঞ্জ থা'নায় ওই শিক্ষকের বি'রুদ্ধে ধ'র্ষণ চেষ্টার মা'মলা করেন। বুধবার তাকে আ'দালতে নেয়া হলে হলে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আ'দালত। অ'ভিযু'ক্ত শিক্ষক গো'লাম কবির (৪৫) ছত্রাজিতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে শরীরচর্চা বিষয়ের শিক্ষক। তিনি ছত্রাজিতপুর ইউনিয়নের কাঠালিয়াপাড়ার মৃ'ত তাজেমুল হকের ছে'লে।

স্থানীয় বাসিন্দা, বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী, প্রত্যক্ষদর্শী, বিদ্যালয় ও পু'লিশ সূত্রে জানা যায়, শিক্ষক গো'লাম কবির ও ওই ছা'ত্রীকে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে ছত্রাজিতপুর উচ্চ বিদ্যলয়ে প্রবেশ করতে দেখে স্থানীয় কয়েকজন যুবক। পরে বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছা'ত্রীকে স্থানীয়রা একটি কক্ষে দেখতে পায়। বিদ্যালয়ের শরীরচর্চা বিভাগের সরঞ্জাম রাখার কক্ষ থেকে তাদের আ'পত্তিকর অবস্থায় আ'ট'ক করা হয়। পরে এর প্রতিবাদে স্কুলে ইট-পাট'কেল নিক্ষেপ করে বিক্ষুব্ধ জনতা।

পু'লিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে স্কুল কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় বাসিন্দারা তাদের দুইজনকে পু'লিশের হাতে সোপর্দ করে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী এক সাবেক শিক্ষার্থী বলেন, আম'রা স্থানীয় কয়েকজন যুবক দীর্ঘ দিন ধরে তাদের অনুসরণ করছি। প্রায় সময়ই দেখতে পাই, স্কুল ছুটির পর বিকেলে তারা দুইজন স্কুলে প্রবেশ করে। শরীরচর্চা বিভাগের শিক্ষক গো'লাম কবিরের কাছে বিদ্যালয়ের মূল ফট'কসহ বিভিন্ন কক্ষের চাবি থাকায়, প্রবেশের পর বাইরের তালা দেওয়া হয়। যাতে মনে হয়, কেউ ভেতরে নেই। আজ সুযোগ মতো পেয়েছি বলে ধরতে সক্ষম হয়েছি।

ছত্রাজিতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাদিকুল ইস'লাম বলেন, বিকেলে মোবাইলে জানতে পারি বিদ্যালয়ের একটি রুমে শিক্ষক গো'লাম কবির ও এক ছা'ত্রীকে আ'ট'ক করা হয়েছে। পরে এসে সবার সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি খা'রাপ হওয়ায় পু'লিশের হাতে তাদের তুলে দেওয়া হয়। একই রুমে দুইজনকে পাওয়া গেলেও কী' অবস্থায় পাওয়া গেছে তা আম'রা নিশ্চিত নই।

স্থানীয় যুবক নয়ন আলী বলেন, আ'ট'কের পর ওই শিক্ষার্থী আমাদের জানায়, দীর্ঘ দিন আগে তাকে স্কাউটের পোশাক দিয়েছিলেন শিক্ষক গো'লাম কবির। এ সময় একটি কক্ষে পোশাক পরিধান করার সময় কিছু আ'পত্তিকর ছবি ধারণ করে সেই শিক্ষক। পরে এই ছবির কথা বলে ব্ল্যাকমেইল করে কয়েকবার তার সঙ্গে শারীরিক স'ম্পর্ক করেছে শিক্ষক গো'লাম কবির।

শি'বগঞ্জ থা'নার ভা'রপ্রাপ্ত কর্মক'র্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান বলেন, ছত্রাজিতপুর স্কুলে ঝামেলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পু'লিশ পাঠানো হয়েছিল। উত্তেজিত জনতার হাত থেকে ওই শিক্ষক ও ছা'ত্রীকে আ'ট'ক করে থা'নায় আনা হয়েছে। শিক্ষকের বি'রুদ্ধে ছা'ত্রীর সঙ্গে আ'পত্তিকর অবস্থায় পাওয়ার অ'ভিযোগ করছেন স্থানীয়রা।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!