আমি ঘন ঘন প্রে'মে পড়ি, কিন্তু ভুল মানুষের: তসলিমা

ষাট বছরে পা দিলেন নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন তসলিমা নাসরিন। ১৯৬২ সালের ২৫ আগস্ট তিনি ময়মনসিংহ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। ৬০তম জন্ম'দিনে তিনি ভা'রতে নির্বাসিত জীবন কা'টাচ্ছেন। প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো বিষয়ে ফেসবুকে তার স্ট্যাটাস থাকলেও এমন একটি দিনে তিনি নিজেকে নিয়ে কোনো কিছুই লেখেননি। তার ভেরিফায়েড পেজে নিজের কোনো স্ট্যাটাস না থাকলেও তাকে নিয়ে লেখা অন্যের স্ট্যাটাসগুলো শেয়ার করতে ভুল করেননি তিনি।

আজ জন্ম'দিন উপলক্ষে বাংলাদেশ এবং ভা'রতের বহু ভক্ত ফেসবুকে তাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তিনি এমন ৩১টি স্ট্যাটাস তার এই প্রিয় বুকে শেয়ার করেছেন। সেই সঙ্গে নিজের জন্ম'দিনে কথা বলেছেন ভা'রতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারের সঙ্গে। তসলিমা বলেন, জন্ম'দিন নিয়ে এখন আর আগে থেকে কিছু ভাবি না। একটা সময় একুশ পদে রান্না করতাম। সবাই আসত। আপ্যায়ন করতাম। এ বার আমি ভেবেছি, কিছুই করব না। কাউকে নিমন্ত্রণও করিনি। কলকাতা থেকে কয়েক জন বন্ধুর আসার কথা। তাঁদের নিয়ে হয়তো রাতে রেস্তরাঁয় খেতে যাব ।

অবসর সময় কিভাবে কাটে জানতে চাইলে আনন্দবাজারকে এই লেখিকা জানান, নিজেকে নিজে সঙ্গ দিয়ে। তবে একেবারে একা নই। মিনু (১৯ বছর বয়সি পোষ্য বিড়াল) আছে। মাঝেমাঝে একা খেতে চলে যাই। আমি একা থাকাতে অভ্যস্ত। খা'রাপ লাগে না। পৃথিবী ঘুরেছি একাই। সিনেমা দেখতে যাই। প্রথম দিন গিয়েই ‘লাল সিংহ চড্ডা’ দেখে এসেছি। আমা'র ভাল লেগেছে। ‘ফরেস্ট গাম্প’ তো আমা'র বহু বার দেখা। মুখস্ত হয়ে গিয়েছে। কোনও সিনেমা বা বই বয়কট করা হলে তা আমি সবার আগে দেখি এবং পড়ি।

প্রে'ম প্রসঙ্গে তসলিমা বলেন, আমি তো ঘন ঘন প্রে'মে পড়ি। তবে ভুল মানুষের। কিছু দিন পর বুঝতে পারি নির্বাচন ভুল হয়েছে। আসলে ভাল লাগলে অনেক কিছু আবার প্রথম দিকে চোখেও পড়ে না। ধীরে ধীরে বুঝি। তাই বলে হৃদয়ের দরজা বন্ধ করি না।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!