বিসিবির সংসারেই বসবাস ‘নিঃসঙ্গ’ ডমিঙ্গোর

সাকিব আল হাসানরা যখন এশিয়া কাপে অংশ নিতে সংযু'ক্ত আরব আমিরাতে, ঢাকার ক্রিকেটপাড়ায় তখন আলোচনার কেন্দ্রীয় চরিত্র রাসেল ডমিঙ্গো।

সদ্য টি ২০ দলের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি পাওয়া প্রোটিয়া কোচ বিসিবির বি'রুদ্ধে বি'স্ফো'রক মন্তব্য করে আলোচনায় ঘৃতাগ্নি করেছেন। এরই মাঝে রটে যায় তার পদত্যাগের গুঞ্জন।

এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ করা হয় ডমিঙ্গোর সঙ্গে। আপনি কি পদত্যাগ করেছেন? ডমিঙ্গোর উত্তর, ‘না’।

পরে ক্রিকেটবিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকইনফোকে তিনি বলেন, ‘আমা'র চুক্তি ২০২৩ সালের নভেম্বর পর্যন্ত। আমি আগামী ১৫ মাস বিসিবির কাছে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

এদিকে কাল বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ডমিঙ্গো যা বলতে চেয়েছেন মিডিয়ায় সেভাবে আসেনি। ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। প্রধান কোচ পদত্যাগ করেননি। তিনি বিব্রতবোধ করছেন।’

কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, বাংলাদেশ দলের কোচের পদ ছেড়ে দিয়েছেন ক্রমশ ‘নিঃসঙ্গ’ হয়ে পড়া ডমিঙ্গো। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে খবরটি। অথচ গত সোমবার তিনি বলে গেছেন, ‘ওয়ানডে ও টেস্ট দল নিয়ে আরও ভালো'ভাবে কাজ করার সময় পাওয়া যাবে।’

আগের দিন বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস কোচের পদত্যাগের খবর শুনে বলেন, ‘ডমিঙ্গো পদত্যাগপত্র আমাদের কাছে পাঠায়নি। মৌখিকভাবেও কিছু বলেনি। এখন পর্যন্ত সে আমাদের কোচ। অক্টোবরে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের সঙ্গে আবুধাবি যাবে।’

ডমিঙ্গো ক্রিকইনফোকে বলেন, ‘ওয়ানডে ও টেস্ট ফরম্যাটে বাংলাদেশের যেখানে থাকা দরকার, সেখানে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছি। অক্টোবরে আবুধাবিতে যাচ্ছি ‘এ’ দলের সঙ্গে। সেখানে আ'ফগা'নিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে সিরিজ রয়েছে। জাতীয় দলের সঙ্গে যোগ দেব ভা'রতের বিপক্ষে ডিসেম্বরে হোম সিরিজের প্রস্তুতির জন্য। আমা'র চুক্তি ২০২৩ সালের নভেম্বর পর্যন্ত। আগামী ১৫ মাস বিসিবির কাছে আমি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

বিসিবির প্রধান নির্বাহী বিষয়টি পরিষ্কার করে বলেন, ‘আম'রাও খবরটা দেখেছি। পুরোটাই ভুল। ডমিঙ্গো হয়তো বোঝাতে চেয়েছেন একরকম, খবরটা হয়েছে অন্যরকম। বিসিবি সভাপতি ও ডমিঙ্গোর মধ্যে আলোচনা হয়েছে কী'ভাবে টেস্ট ও ওয়ানডে দল নিয়ে কোচ কাজ করবেন। ডমিঙ্গো সেভাবেই পরিকল্পনা করেছেন। দ্রুত হয়তো তিনি পরিকল্পনা জমা দেবেন। আমি আবারও বলছি, কোচ পদত্যাগ করেননি।’

তিনি বলেন, ‘কোচের সঙ্গে কথা হয়েছে। তিনি বিব্রত। এই কারণে আপনাদের কাছে অনুরোধ করেছেন, যাতে বিষয়গুলো ভুলভাবে না আসে। যে খবর মিডিয়ায় এসেছে, সেটি সঠিক নয়।’

নিজাম উদ্দিন বলেন, ‘ডমিঙ্গো বিসিবিতে চাকরি করেন। তিনি আমাদের জাতীয় দলের কোচ। জটিলতা হওয়ার কিছু নেই।’ তিনি বলেন, ‘একেক কোচের একেক রকম পরিকল্পনা থাকে। তিনি কী'ভাবে দল পরিচালনা করবেন, সেটা তার ব্যাপার।’ বাস্তবতা হলো, কোচ কিংবা বিসিবি চাইলেই চুক্তি শেষ না হওয়া পর্যন্ত ছাড়াছাড়ি সম্ভব নয়। তাকে ছেড়ে দিতে হলে মোটা অঙ্কের অর্থ দিতে হবে বিসিবিকে। তবে যদি দুই পক্ষের সম্মতি থাকে, তাহলে যে কোনো সময় হতে পারে বিচ্ছেদ। ডমিঙ্গো নিশ্চয় জেনেশুনে নিজের পায়ে কুড়াল মা'রবেন না!

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!