তেলের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ায় হল ছাড়া ঢাবিছাত্র

জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়াতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) হাজী মুহম্ম'দ মুহসীন হলের এক শিক্ষার্থীকে হল ছাড়া করার অ'ভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের বি'রুদ্ধে। পরবর্তী ওই শিক্ষার্থী হল ছেড়ে বাহিরে বাসা নিয়ে থাকছে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর নাম কাজী সাকিব। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। সাকিব জানান, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির ঘটনায় আমি গত ৬ আগস্ট একটা একটা স্ট্যাটাস সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে পোস্ট করি। এ পোস্টটি সরকারবিরোধী আখ্যা দিয়ে মুহসীন হল শাখা ছাত্রলীগ কর্মী ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থী আবু হাসান রনি এবং বিশ্বধ'র্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থী মশিউর রহমান শান্ত এ পোস্টের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

ওই শিক্ষার্থী আরো বলেন, অ'ভিযু'ক্তরা বলেন ছাত্রলীগের অধীনে থেকে কেন তেলের দাম বাড়ার ব্যাপারে বঙ্গাত্মক পোস্ট লেখা হলো। ছাত্রলীগ ও সরকারের বি'রুদ্ধে যায় এমন কিছু নিয়ে সার্কাজম করা যাবে না। এসব করতে হলে হল ছেড়ে দিতে হবে। স্ট্যাটাসটি ডিলিট করার জন্য চাপ দেওয়া হয় নানান পর্যায়ে। এক পর্যায়ে ছাত্রলীগের হু'মকি-ধামকির কারণে হল ছেড়ে দিয়ে ক্যাম্পাসের বাইরে বাসা নিয়েছেন বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে প্রশাসনের কাছে অ'ভিযোগ দেওয়া হয়েছে কি না জানতে চাইলে সাকিব বলেন, প্রশাসনের কাছে অ'ভিযোগ দেইনি। শুধু শুধু হে'নস্তা হতে হবে উল্টো। প্রশাসন যদি কার্যকর ব্যবস্থা নিত, তাহলে এ রকম অবস্থা থাকত না।

জানা যায়, অ'ভিযু'ক্ত দুজনই মুহসীন হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শহিদুল হক শিশিরের অনুসারী। শিশির বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের অনুসারী।

এ ঘটনায় অ'ভিযু'ক্ত দুই ছাত্রলীগকর্মী ও হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শহিদুল হক শিশিরকে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তাঁদের কাউকেও পাওয়া যায় নি।

এ ব্যাপারে হল মুহসীন হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মাসুদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ওই শিক্ষার্থী আমাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেনি কিংবা অ'ভিযোগ জানায়নি। আম'রা হল প্রশাসন নিজেদের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছি। তার সঙ্গে কথা বলে আম'রা তাকে আবার হলে ওঠানোর চেষ্টা করা হবে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!