স্বামী রেখে প্রে'মিকের বাড়িতে প্রে'মিকা, পালিয়ে গেল প্রে'মিক

ভোলার লালমোহন উপজে'লায় প্রে'মিকের বাড়িতে নবম শ্রেণির এক ছা'ত্রী এসে হাজির হয়েছেন। এ সময় প্রে'মিক বাড়ি থেকে পালিয়ে যান।

রোববার (২৮ আগস্ট) বিকেলে ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। এর আগে শনিবার (২৭ আগস্ট) বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

অ'ভিযু'ক্ত ব্যক্তি উপজে'লার পশ্চিম চরউমেদ ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের নেছার ডোবাইয়ের ছে'লে পিয়াস।

জানা গেছে, পিয়াসের সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইমোতে প্রে'ম হয় ওই ছা'ত্রীর। পরে তাদের মধ্যে মোবাইলে কথাবার্তা চলতে থাকে। ইতোমধ্যে ছা'ত্রীর বাবা-মা ঢাকায় জীবন নামের এক ছে'লের সঙ্গে বাল্যবিয়ে দিয়েছেন। তবে বিয়ের পর স্বামীর বাড়িতে অবস্থান করলেও ১৭ দিনের মা'থায় শনিবার (২৭ আগস্ট) বিকেলে লালমোহন উপজে'লায় প্রে'মিক পিয়াসের বাড়ি চলে আসে ওই ছা'ত্রী। এ সময় সে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায় প্রে'মিক।

এদিকে ছা'ত্রীর বাবা-মায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাদের মে'য়ে স্বামীর বাড়ি থেকে পালিয়ে আসায় তাকে নিতে চাইছেন না। স্বামী জীবনও তার স্ত্রী' পালিয়ে প্রে'মিকের বাড়িতে আসায় ফের ঘরে তুলতে অনীহা প্রকাশ করেন।

এ বিষয়ে ছা'ত্রী বলেন, পিয়াসের সঙ্গে আমা'র স'ম্পর্ক আছে। তবে ১৭ দিন আগে তারা বাবা-মা জো'র করে তাকে বিয়ে দেন। আমি বিয়েতে রাজি ছিলাম না। বিয়ের পরও পিয়াসের সঙ্গে যোগাযোগ ও ইমোতে প্রতিদিন কথা হতো। ইমোতে পিয়াস তার বাড়ির ঠিকানা দিলে, ঢাকা থেকে একাই চলে আসি এখানে।

পিয়াসের খালাতো ভাই রাফিজ জানান, যে মে'য়েটি এসেছেন। তার এখনও বিয়ের বয়স হয়নি। যদি মে'য়েটির বয়স হতো ও বিয়ে না হতো তাহলে আম'রা পিয়াসের সঙ্গে বিয়ের ব্যবস্থা করতাম। এখন তা আর সম্ভব না। পু'লিশ ও মে'য়ের অ'ভিভাবকের সঙ্গে যোগাযোগ করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

লালমোহন থা'নার ভা'রপ্রাপ্ত কর্মক'র্তা (ওসি) মাকসুদুর রহমান মুরাদ জানান, এ ঘটনায় এখনও থা'নায় কেউ অ'ভিযোগ দেয়নি। এ বিষয়ে অ'ভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!