বাংলাদেশের সুদিন ফেরাতে বোর্ড ও সাকিবের সঙ্গে চলতে হবে: পার্থিব

পারফরম্যান্স আর ব্যক্তিগত অর্জনে সাকিব আল হাসান বাংলাদেশের সর্বকালের ক্রিকেটার হয়েছেন অনেক আগেই। লম্বা সময় ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকে'টের তিন সংস্করণে মাতিয়েছেন অ'ভিজ্ঞ অলরাউন্ডার। বয়স ৩৫ পেরিয়ে গেলেও নিয়মিতই পারফর্ম করছেন বাংলাদেশের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক। সাকিবের পারফরম্যান্সের গ্রাফ যতটা উপরে উঠেছে বাংলাদেশ যেন ঠিক ততটাই নিচে নেমে। সতীর্থদের সম'র্থনের অভাবে বাংলাদেশকে অনেক ম্যাচই একা জেতাতে পারেননি সাকিব।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকে'টে সেটার সংখ্যাটা বোধহয় একটু বেশি। ২০ ওভা'রের ক্রিকে'টে এখন পর্যন্ত পায়ের নিচে মাটির তলা খুঁজে পায়নি বাংলাদেশ। কালে ভদ্রে কিছু সাফল্য পেলেও বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি ক্রিকে'টের সামগ্রিক উন্নতি হয়নি। সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে হারের বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে বাংলাদেশ। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দল ভালো না করলেও খানিকটা উজ্জ্বল ছিল সাকিবের পারফরম্যান্স। বাছাই পর্বে জেতা দুটি ম্যাচেই সেরার পুরস্কার পেয়েছিলেন অ'ভিজ্ঞ এই অলরাউন্ডার।

শুধু আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নয়, বিশ্ব জুড়ে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে থাকা ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকে'টেও রয়েছেন সাকিবের অবিরাম ছুটে চলা। আইপিএল থেকে পিএসএল, সিপিএল কিংবা বিগ ব্যাশ, সব জায়গাতেই নিজের ছাপ রেখেছেন তিনি। তবে বিশ্ব ক্রিকে'টে ছাপ রাখতে পারেননি বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি দল। বরং সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আধুনিক ক্রিকে'টের চেয়ে পিছিয়ে পড়েছে তারা।

কদিন আগে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি দলের কনসালটেন্টের দায়িত্ব নেয়া শ্রীধরন শ্রীরাম বলেছিলেন, ‘টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট নিয়ে তার (সাকিবের) দৃষ্টিভঙ্গী দেখে খুব ভালো লেগেছে। খুবই আধুনিক, তরতা'জা এবং আম'রা একই অবস্থানে আছি।’

সাকিবকে নিয়ে শ্রীরামের এমন কথার সঙ্গে খানিকটা একমত পোষণ করেছেন পার্থিব প্যাটেল। ভা'রতের সাবেক এই উইকেট কিপার ব্যাটার মনে করেন, বাংলাদেশকে ভালো করতে কিংবা প্রতিভাবান ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্স বের করে আনতে সাকিব এবং বোর্ডকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

ক্রিকবাজের সঙ্গে আলাপকালে পার্থিব বলেন, ‘বাংলাদেশ যদি ভালো ফলাফল করতে চায় বা দলে যেসব প্রতিভাবান ক্রিকেটার আছে তাদের সেরাটা বের করে আনতে চায় তাহলে বোর্ড এবং সাকিবকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। তাদের সেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। সে অনেক অ'ভিজ্ঞ, আইপিএল খেলেছে, বিশ্বের অন্যান্য লিগে খেলেছে এবং পারফর্ম করেছে।’

ড্রেসিং রুমের পরিবেশ নিয়ে অনেক সময়ই অনেক কথা শোনা যায়। কখনও সিনিয়র ক্রিকেটারদের সঙ্গে কোচের স'ম্পর্ক খা'রাপ আবার কখনও তরুণদের দমিয়ে রাখার কথাও শোনা গেছে। পার্থিভ মনে করেন, বাংলাদেশের মাঠের খেলার চেয়ে ড্রেসিং রুমে দলকে নিয়ন্ত্রণ করাটা বেশি প্রয়োজন। বাংলাদেশকে ভালো করতে একটি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যাওয়ার পরাম'র্শ দিয়েছেন তিনি।

যেখানে ফলাফলের কথা না ভেবে বরং ‘আম'রা সঠিক প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকব এবং উন্নতি করতে থাকব’ এমনভাবে ক্রিকেটারদের ভাবতে বলছেন ভা'রতের সাবেক এই ক্রিকেটার। সেই সঙ্গে এটিও মনে করিয়ে দিয়েছেন, রাতারাতি চ্যাম্পিয়ন হবে না। তবে নিজেদের প্রক্রিয়ায় অটুট থাকতে বলছেন তিনি।

পার্থিব বলেন, ‘আম'রা পরিসংখ্যানের দিকেও তাকাতে পারি। তার ইকোনমি রেট মাত্র ছয়ের একটু উপরে (৬.৬৯)। একজন ফিঙ্গার স্পিনারের ইকোনমি রেট যখন ৬.৬৯ তাহলে সেটা অসাধারণ। তবে মাঠে খেলার চাইতেও ওদের যা বেশি দরকার তা হচ্ছে ড্রেসিং রুমে দলকে নিয়ন্ত্রণ করা। সেই পর্যন্ত সে সঠিক পথেই আছে। ‘আম'রা সঠিক প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকব এবং উন্নতি করতে থাকব, ফলাফলে নজর রাখব না’- এই ধরনের প্রক্রিয়ার মধ্যে যাওয়া।’

‘দলে আপনি অনেক সমস্যা দেখবেন, আপনি রাতারাতি চ্যাম্পিয়নও হবেন না। এতে তারা কিছু ম্যাচ জিততে পারে, এশিয়া কাপ জিততে পারে, সম্ভবত বিশ্বকাপও জিততে পারে। আম'রা যে কথাগুলো বলছি সেগুলোর জন্য অ'ভিজ্ঞ কাউকে দরকার, প্রক্রিয়া অনুসরণ করবে এমন কাউকে দরকার। আম'রা কেউই রাতারাতি সাফল্য চাইছি না, এটাই এই মুহূর্তে জরুরী।’

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!