ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই সানজানার বাবা গ্রে'প্তার

রাজধানীর দক্ষিণখানে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নি'হত সানজানা মোসাদ্দিকার (২১) আত্মহ'ত্যার প্র'রোচনার মা'মলায় অ'ভিযু'ক্ত বাবাকে গ্রে'প্তার করেছে রেব।

বুধবার (৩১ আগস্ট) সকালে ময়মনসিংহের গফরগাঁও হতে তাকে গ্রে'প্তার করা হয়।

র‌্যা'­বের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, সানজানার আত্মহ'ত্যার পর তার মা একটি মা'মলা করেন। সেখানে সানজানার বাবা সানজানাকে আত্মহ'ত্যায় প্ররোচিত করেছেন এমন অ'ভিযোগ ছিল। এরপর থেকেই আম'রা তাকে খুঁজছিলাম, কিন্তু তিনি ঘটনার পরপরই আত্মগো'পনে চলে যান। আম'রা গোয়েন্দা তৎপরতা চালিয়ে যাই। বুধবার দুপুরে গো'পন তথ্যের ভিত্তিতে অ'ভিযান চালিয়ে তাকে গ্রে'প্তার করা হয়। এ বিষয়ে পরবর্তী সময়ে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে।

ছাদ থেকে পড়ে ব্র্যাক ইউনিভা'র্সিটির ছা'ত্রী সানজানা মোসাদ্দিকার মৃ'ত্যুর পরই জানা গিয়েছিল বাবার হাতে তার নিয়মিত নির্যাতিত হওয়ার কথা। এই তরুণীর এক প্রতিবেশীর কাছ থেকে এবার জানা গেল আরেকটি ঘটনা। মাসখানেক আগে সানজানা তার প্রা'ণ বাঁ'চাতে চি'ৎকার করার পর তারা গিয়ে দেখতে পান, তার গলায় বঁটি ধরে আছেন বাবা।

ওই তরুণী জানান, নিয়মিত মা'রধরের চাপ নিতে পারেননি সানজানা। তিনি মানসিক রোগে আ'ক্রান্ত হয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন তার মা।

গত ২৭ আগস্ট দুপুরে দক্ষিণখান মোল্লারটেক এলাকার একটি ১০তলা ভবনের ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়েন সানজানা মোসাদ্দেক। সন্ধ্যা ৭টার দিকে তার ম'রদেহ উ'দ্ধার করে পু'লিশ। এ ঘটনায় রাতেই সানজানার মা বাদী হয়ে মা'মলা করেন। এতে ওই শিক্ষার্থীর বাবা শাহীন আলমকে আ'সামি করা হয়।

পু'লিশ জানায়, ঘটনার দিন শনিবার দুপুরের দিকে কাপড় শুকানোর জন্য বাসার সিকিউরিটি গার্ডের কাছ থেকে ছাদের চাবি নেন সানজানা। পরে ওই ছা'ত্রী ১০তলা ভবনের ছাদে ওঠে সেখান থেকে লাফিয়ে পড়েন।

আত্মহ'ত্যার আগে একটি চিরকুট লেখে গেছেন ওই ছা'ত্রী। চিরকুটটি উ'দ্ধার করেছে দক্ষিণখান থা'না পু'লিশ।

চিরকুটে লেখা রয়েছে, ‘আমা'র মৃ'ত্যুর জন্য আমা'র বাবা দায়ী। একটা ঘরে পশুর সাথে থাকা যায়। কিন্তু অমানুষের সাথে না। একজন অ'ত্যাচারী রেপিস্ট যে কাজের মে'য়েকেও ছাড়ে নাই। আমি তার করুণ ভাগ্যের সূচনা।’

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!