এবার ভালোবাসার টানে সিরাজগঞ্জে ইন্দোনেশিয়ার তরুণী

ভালোবাসার টানে এবার সিরাজগঞ্জের শাহ'জাদপুরে ছুটে এসেছেন ইন্দোনেশিয়ার এক তরুণী। ভালোবেসে বাংলাদেশি তরুণকে বিয়ে করে ঘর বেঁধেছেন সিতি নুরানি নামে ইন্দোনেশিয়ার ওই তরুণী।

সিতি নুরানি ইন্দোনেশিয়ার পারিজাত কুলন থা'নাধীন কেটরোসনা গ্রামের বাসিন্দা। মালয়েশিয়ার একটি ক্লিনিকে নার্স হিসেবে কর্ম'রত আছেন তিনি।

জানা যায়, তিন বছর পূর্বে সিতি নুরানির সঙ্গে ফেসবুকে পরিচয় হয় মালেয়েশিয়ান প্রবাসী সিরাজগঞ্জের শাহ'জাদপুর উপজে'লার গোপালপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছে'লের। এরপর তারা সেখানেই বিয়ে করে সংসার শুরু করেন। সম্প্রতি দেশে এসে আবার দেশীয় নিয়ম-নীতি মেনে বিয়ে সম্পন্ন হয়।

ফেসবুকের বন্ধুত্ব থেকে তাদের মধ্যে প্রে'মের স'ম্পর্ক গড়ে ওঠে। চলতি মাসে বাংলাদেশে এসে মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) স্থানীয় মওলানার মাধ্যমে বাংলাদেশের রীতি ও মু'সলিম শরিয়া মোতাবেক ৫০ হাজার টাকা দেনমোহরে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।

ভিনদেশী পুত্রবধূ পেয়ে আনোয়ারের মা আবেগে আপ্লুত কণ্ঠে বলেন, আমা'র পুত্রবধূ খুবই ভালো, সে আমাকে মা বলে ডাকে। বিদেশি পুত্রবধূর জন্য সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করেন তিনি।

আনোয়ার হোসেন বলেন, ফেসবুকের মাধ্যমে ইন্দোনেশিয়ান মু'সলিম পরিবারের মে'য়ে সিতি নুরানীর সঙ্গে পরিচয়ের পর আম'রা বিয়ে করেছি। আমা'র স্ত্রী' আমাদের দেশ ও কৃষ্টি কালচার স'ম্পর্কে আমা'র কাছ থেকে জেনেছে। আমা'র পরিবার স'ম্পর্কে সব কিছু জেনে বাংলাদেশে আসে নুরানি। এরপর মঙ্গলবার শাহ'জাদপুরে বাংলাদেশের রীতি অনুযায়ী বিবাহ রেজিস্ট্রেশন করেছি।

সিতি নুরানি বলেন, বাবা-মায়ের অনুমতি নিয়েই বিয়ে করি। স্বামীর সঙ্গে সুখে-শান্তিতে ঘর-সংসার শুরু করেছি। সবার কাছে দোয়া চাই। এখানে এসে খুব ভালো লাগছে।

এদিকে, আনোয়ারের ভিনদেশি বধূকে দেখতে প্রতিদিন স্থানীয় লোকজন আনোয়ারের বাড়িতে ভিড় করছেন।

কৈজুরি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন খোকন ঢাকা পোস্ট'কে বলেন, সম্প্রতি তারা বাড়িতে এসেছে এবং গতকাল দেশীয় নিয়ম-নীতি মেনে বিয়ে সম্পন্ন করেছেন। বিষয়টি এলাকার লোক পজিটিভলি নিয়েছেন এবং প্রতিদিনই অসংখ্য লোক তাদের দেখতে বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছেন

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!