মঙ্গলবার নাগাদ বাংলাদেশ উপকূলে আ'ঘাত হানবে ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’

বঙ্গোপসাগরের আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ সংলগ্ন সমুদ্র এলাকায় একটি নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়েছে। এটি আরও ঘণীভূত হয়ে ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। সম্ভাব্য ঘূর্ণিঝড়টির নাম দেওয়া হয়েছে ‘সিত্রাং’। এটি থাইল্যান্ডের দেওয়া নাম যার অর্থ পাতা। ফনি, আম্পান, ইয়াসের পর এটিই হবে এই অঞ্চলে আ'ঘাত করা কোনো ঘূর্ণিঝড়।

সিত্রাং-এর গতিপথ কী' হবে তা নিয়ে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে সুনির্দিষ্ট কোনো বক্তব্য এখনও আসেনি। তবে গতকালই চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে পরবর্তী নির্দেশনা সাবধানতার সাথে পর্যবেক্ষণ করতে বলা হয়েছে।

এদিকে ভা'রতের আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর বলছে, আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে বঙ্গোপসাগরে গভীর নিম্নচাপ তৈরি হবে। প্রথমে এটি উত্তর পশ্চিম দিকে অগ্রসর হলেও পরে তার অ'ভিমুখ হবে উত্তর দিক। ২৪ অক্টোবর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। ২৫ অক্টোবর নাগাদ বাংলাদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গ উপকূলে আ'ঘাত হানবে ঘূর্ণিঝড়টি।

গত বুধবার (১৯ অক্টোবর) যু'ক্তরাষ্ট্রের আবহাওয়া পূর্বাভাস মডেল গ্লোবাল ফোরকাস্ট সিস্টেম (জিএফএস) এক পূর্বাভাসে জানায়, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপটি ২১ অক্টোবরের মধ্যে নিম্নচাপে রূপ নিতে পারে; যেটি ২২ থেকে ২৩ অক্টোবরের মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ের শক্তি অর্জনের প্রবল আশ'ঙ্কা রয়েছে এবং ২৫ অক্টোবরের মধ্যে উপকূলে আ'ঘাত হানতে পারে।

পূর্বাভাসে বলা হয়, খুলনা বিভাগে আ'ঘাত হানার সময় ঘূর্ণিঝড়টির গতিবেগ ঘণ্টায় ১০০ থেকে ১৩০ কিলোমিটার পর্যন্ত উঠতে পারে। তবে ঘূর্ণিঝড়টি যদি কিছুটা পূর্বদিকে সরে গিয়ে পুরোপুরি খুলনা ও বরিশাল অঞ্চলে আছড়ে পড়ে, সেক্ষেত্রে ঝড়টির গতিবেগ ঘণ্টায় ১৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে।

আবহাওয়াবিদ মো. ওম'র ফারুক জানিয়েছেন, আন্দামান সাগর এবং তৎসংলগ্ন দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগর এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপটি ঘনীভূত হচ্ছে। আগামী দুই দিনে তা নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!